জেল হতে পারে ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রীর

জেল হতে পারে ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রীর

আন্তর্জাতিক ডেস্ক : ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসন যদি চুক্তি ছাড়া ব্রেক্সিট ঠেকাতে বিরোধীদের নির্ধারিত সময়সীমা পেছানোর অনুরোধে আনা একটি বিল আইনে পরিণত হলে তা মানতে রাজি না হয় তাহলে কারাদণ্ড হতে পারে তার। দেশটির সরকারি কৌঁসুলির কার্যালয়ের সাবেক এক পরিচালক এ কথা জানিয়েছেন।

কেন ম্যাকডোনাল্ড নামের ওই আইনজ্ঞ মার্কিন সংবাদমাধ্যম স্কাই নিউজকে স্থানীয় সময় শনিবার এ কথা বলেছেন। তিনি বলেছেন, প্রধানমন্ত্রীকে মারাত্মক পরিণতি ভোগ করতে হতে পারে যদি তিনি ব্রেক্সিটের মেয়াদ বাড়াতে ইইউকে অনুরোধ না জানায়।

ম্যাকডোনাল্ড বলেছে, প্রধানমন্ত্রী যদি এটা করে তাহলে একটি আদালত এই নির্দেশ জারি করার ক্ষমতা রাখে। সে আরও বলে, ‘কোনো একটি আদালতের আইনটি অনুসরণ করা উচিত। যদি প্রধানমন্তী তা করতে অস্বীকৃতি জানায় তাহলে সেটা হবে আদালতের প্রতি অবজ্ঞা। ফলে তাকে কারাগারে নেয়া হবে।’

ম্যাকডোনাল্ড নামের সাবেক ওই কৌঁসুলি ২০০৩ থেকে ২০০৮ সাল পর্যন্ত যুক্তরাজ্যের প্রসিকিউটরের পদে ছিল। ব্রেক্সিট কার্যকরে নির্ধারিত সময়সীমা ৩১ অক্টোবর থেকে ৩ মাস পেছানো নিয়ে গত শুক্রবার ব্রিটিশ পার্লামেন্টে একটি বিল পাস হয়েছে। আগামী সোমবার যা আইনে পরিণত হবে।

আইনের ফলে ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী যদি ৩১ অক্টোবরের মধ্যে একটি চুক্তিতে পৌঁছাতে না পারে তাহলে ইউরোপীয় ইউনিয়নের কাছে ব্রেক্সিট প্রক্রিয়া (মূলত দেশটির সংবিধানের ৫০ নং অনুচ্ছেদ কার্যকর প্রক্রিয়া) পেছানোর আবেদন জানাতে বাধ্য থাকবে।

আগামী ৩১ অক্টোবরের মধ্যে চুক্তি ছাড়াই ব্রেক্সিট কার্যকরে বদ্ধপরিকর ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসন। সে জানিয়েছে, মরে যাবে, তবুও ব্রেক্সিট পেছাবেন না। তার এমন ঘোষণার পর ক্ষমতাসীন দলের ২১ সদস্যের সমর্থন নিয়ে পার্লামেন্টের নিয়ন্ত্রণ প্রধানমন্ত্রী বরিসের কাছ থেকে কেড়ে নিয়েছে বিরোধী দল।

আপনার মতামত