সংসদের উপসচিবরাও চান সরকারি গাড়ি

সংসদের উপসচিবরাও চান সরকারি গাড়ি সার্বক্ষণিক গাড়ি ব্যবহার করতে চান

নিউজ ডেস্ক: সরকারের উপসচিব ও তদূর্ধ্ব কর্মকর্তাদের মতো জাতীয় সংসদ সচিবালয়ের উপসচিব বা সমমর্যাদার বা তদূর্ধ্ব কর্মকর্তারাও সার্বক্ষণিক গাড়ি ব্যবহার করতে চান। এছাড়া সরকারের অন্যান্য বিভাগের মতো সুদমুক্ত বিশেষ অগ্রিম এবং গাড়ি সেবা নগদায়ন সুবিধা দেয়ার দাবি জানিয়েছে তারা।

সূত্র জানায়, সংসদ সচিবালয় ছাড়া এই পদমর্যাদার কর্মকর্তারা এসব সুবিধা পান। কিন্তু দীর্ঘদিন ধরে তারা এইসব প্রাধিকারে দাবি করলেও তা বাস্তবায়ন হচ্ছে না। এজন্য বিষয়টি প্রধানমন্ত্রীর নজরে আনার ব্যবস্থা করছেন তারা। আসন্ন বাজেটের আগেই সংসদ সচিবালয় কমিশন সভায় বিষয়টি কার্যপত্র হিসেবে অন্তর্ভুক্ত করার জন্য দাবিটি পত্র আকারে উত্থাপন করা হবে।
সভায় এই কমিটির সদস্য হিসেবে উপস্থিত থাকবেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। স্পিকারের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত এ সভায় অর্থমন্ত্রীও উপস্থিত থাকবেন। সংসদের বাজেট থেকে শুরু করে গুরুত্বপূর্ণ সিদ্ধান্ত এ সভায় নেয়া হয়। এ জন্য সংসদ সচিবালয় এই সভায় বিষয়টি অন্তর্ভুক্ত করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে সংসদের সিনিয়র সচিব ড. জাফর আহমেদ খান জাগো নিউজকে বলেন, এ বিষয়ে একটি প্রস্তাবনা কমিশন বৈঠকে উত্থাপনের জন্য নির্দেশ দেয়া হয়েছে। দাবির যৌক্তিকতা ও আইন ওই প্রস্তাবনায় তুলে ধরা হবে। সংসদ সচিবালয়ের সিনিয়র সচিব এতে স্বাক্ষর করবেন।

সূত্র জানায়, জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয় ২০১৮ সালে ২৫ জুলাইয়ে প্রাধিকারপ্রাপ্ত সরকারি কর্মকর্তাদের সুদমুক্ত বিশেষ অগ্রিম এবং গাড়ি সেবা নগদায়ন নীতিমালা ২০১৮ (সংশোধিত) জারি করেছে। সরকারের যুগ্মসচিব, অতিরিক্ত সচিব, সচিব/সিনিয়র সচিব পদমর্যাদার কর্মকর্তারা আগে থেকেই সার্বক্ষণিক সরকারি গাড়ি ব্যবহারে প্রাধিকার ভোগ করে আসছেন। জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয় হতে গত ২০১৭ সালের ১১ জুনে সরকারের উপসচিবদের এবং গত ২০১৮ সালের ১১ ডিসেম্বরে সশস্ত্র বাহিনীর মেজর/সমর‌্যাংক ও লেফটেন্যান্ট কর্ণেল/সমর‌্যাংক কর্মকর্তাদেরকে সার্বক্ষণিক সরকারি গাড়ি ব্যবহারের প্রাধিকার দেয়া হয়েছে।

সংসদ সচিবালয় আইন ১৯৯৪ এর ১২ ধারায়, সরকারী কর্মকর্তা ও কর্মচারীদের ক্ষেত্রে প্রযোজ্য বেতন, ভাতা, ছুটি, ভবিষ্য তহবিল, গ্রাচুইটি, পেনশন ও চাকুরির অন্যান্য সুযোগ সুবিধা সংক্রান্ত আইন ও বিধিমালা, প্রয়োজনীয় অভিযোজন সহকারে সংসদ সচিবালয়ে নিযুক্ত কর্মকর্তা ও কর্মচারীদের ক্ষেত্রে প্রযোজ্য হবে মর্মে বিধান রয়েছে।

উক্ত বিধান অনুযায়ী সংসদ সচিবালয়ের উপসচিব বা সমমর্যাদার বা তদূর্ধ্ব পর্যায়ের কর্মকর্তারা সার্বক্ষণিক সংসদ সচিবালয়ের গাড়ি ব্যবহারের প্রাধিকার, সুদমুক্ত বিশেষ অগ্রিম এবং গাড়ি সেবা নগদায়ন বাবদ অর্থ প্রদান করা প্রয়োজন। কিন্তু তারা তা পাচ্ছেন না।

সূত্র জানায়, এ বিষয়ে জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ে চিঠি পাঠানো হলে জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয় বিষয়টি সংসদ সচিবালয়ের বাজেটের আওতায় বলে জানায়। এজন্য সংসদ সচিবালয়ের বর্তমানে কর্মরত নিজস্ব ২২ জন উপসচিব বা সমমর্যাদার কর্মকর্তাদের অনুকূলে গাড়ি কেনার জন্য সুদমুক্ত বিশেষ অগ্রিম বাবদ আসন্ন ২০১৯-২০ অর্থবছরে জনপ্রতি ত্রিশ লাখ টাকা হারে মোট ছয় কোটি ৬০ লাখ টাকা (এককালীন) এবং গাড়ি সেবা নগদায়ন বাবদ জনপ্রতি মাসিক পঞ্চাশ হাজার টাকা হারে বছরে এক কোটি ৩২ লাখ টাকা বরাদ্দ চায়।

এ সংক্রান্ত খসড়া প্রস্তাবনায় উল্লেখ করা হয়, জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয় কর্তৃক জারিকৃত প্রাধিকারপ্রাপ্ত সরকারি কর্মকর্তাদের সুদমুক্ত বিশেষ অগ্রিম এবং গাড়ি সেবা নগদায়ন নীতিমালা, ২০১৮ (সংশোধিত) অনুযায়ী জাতীয় সংসদ সচিবালয়ের সচিবের মাধ্যমে, জাতীয় সংসদের বাজেট হতে গাড়ি ক্রয়ের জন্য সুদমুক্ত বিশেষ অগ্রিম এবং গাড়ি সেবা নগদায়নের অনুমোদনের প্রস্তাব করছি।

আপনার মতামত