লকডাউন প্রত্যাহার করে সবকিছু স্বাভাবিক করার দাবিতে রিট দায়ের

মানবাধিকার সংগঠনের নামের শেষে ‘কমিশন’ শব্দ ব্যবহারে হাইকোর্টের নিষেধাজ্ঞা

নিজস্ব প্রতিবেদক: সরকারঘোষিত রেড জোনগুলোতে ঢালাও লকডাউন প্রত্যাহার ও দেশব্যাপী স্বাভাবিক অর্থনৈতিক কর্মকা- পুনরায় চালুর আবেদন জানিয়ে হাইকোর্টে রিট মামলা দায়ের করা হয়েছে। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের মাইক্রোবায়োলজি বিভাগের অধ্যাপক ড. মুহাম্মদ মঞ্জুরুল করিমের পক্ষে রিট মামলাটি দায়ের করেছেন সুপ্রীম কোর্টের আইনজীবী এডভোকেট শেখ ওমর শরীফ। মামলাটি ভার্চুয়াল কোর্টে শুনানির জন্য গত রোববার অনলাইনে জমা দেওয়া হয়।

রিট পিটিশনে বলা হয়, সরকার সম্প্রতি করোনার নাম দিয়ে দেশের বিভিন্ন এলাকাকে রেড জোন হিসেবে চিহ্নিত করে সেখানে ঢালাওভাবে লকডাউন জারি করেছে। বাংলাদেশে প্রচলিত “সংক্রামক রোগ (প্রতিরোধ, নিয়ন্ত্রণ ও নির্মূল) আইন, ২০১৮”-এর অধীনে কেবলমাত্র সংক্রামক রোগে আক্রান্ত ব্যক্তিদের চলাচল, বসতবাড়ি কিংবা ব্যবহৃত দ্রব্যাদিতে সরকার নিয়ন্ত্রণ আরোপ করতে পারে। অসুস্থ মানুষদের কারণে সমগ্র এলাকা কিংবা সমগ্র শহর লকডাউন করার কোনো আইনগত এখতিয়ার সরকারের নেই। তাছাড়া করোনাকে এখনো বাংলাদেশ সরকার উক্ত আইনের অধীনে “সংক্রামক ব্যাধি” হিসেবে ঘোষণাও করেনি। এমতাবস্থায় সুস্থ-সবল নাগরিকদের সাংবিধানিকভাবে স্বীকৃত পেশার স্বাধীনতা, চলাচলের স্বাধীনতা, ব্যক্তিগত স্বাধীনতায় হস্তক্ষেপের আইনগত কর্তৃত্ব সরকারের নেই।

পিটিশনে আরো বলা হয়, লকডাউন মৃত্যুহার কমাতে পারে, এমন ধারণার কোনো প্রমাণিত বৈজ্ঞানিক ভিত্তি নেই। কারণ সারা বিশ্বে যেসব দেশে করোনায় সবচেয়ে বেশি হারে মৃত্যু হয়েছে (মিলিয়ন জনসংখ্যায় মৃত্যুহার হিসেবে), তার প্রথম ১০টিতেই লকডাউন হয়েছিল। অপরদিকে লকডাউন না হয়েও সুইডেন মৃত্যুহারের দিক থেকে ১১তম অবস্থানে আছে। আবার অনেক দেশে লকডাউন তুলে নেয়ার পর আক্রান্তের সংখ্যা হ্রাস পেয়েছে। মামলাটি বিচারক ইনায়েতুর রহিমের বেঞ্চে শুনানির জন্য অনলাইনে জমা দেওয়া হয়েছে।