যাকাত আর আয়কর কি একই?

যাকাত সম্পর্কে বা আয়কর সম্পর্কে সঠিক ধারণার অভাবে অনেকে যাকাত ও আয়করকে একসাথে গুলিয়ে ফেলেন। কেউ কেউ মনগড়াভাবে এইদুটোকে ‘একই’ বলে প্রচারও করে যাচ্ছে। এতে মুসলমানদের ফরয যাকাতের গুরুত্ব নষ্ট হচ্ছে। অনেকে যাকাত থেকে দূরে সরে যাচ্ছে। অথচ যাকাত ও সরকারের ট্যাক্স একই বিষয়বস্তু নয়। পার্থক্যটা খুবই স্পষ্ট, না বোঝার মতো কোন ধোয়াশা নেই তাতে।

ট্যাক্স (কর) ও যাকাতের মধ্যে পার্থক্য:

১. বিনিময়: ট্যাক্স বা কর হচ্ছে সরকারের সেবার বিনিময়। যেমন- সরকার আমাদের রাস্তা-ঘাট, ফ্লাইওভার, ওভারব্রীজ, সুয়ারেজ লাইন, পানির লাইন, আবর্জনা নিষ্কাষণ, পরিবেশ দূষণরোধ, আইন-আদালত, শৃঙ্খলা রক্ষা, মাল সম্পদের নিরাপত্তা, দেশের নিরাপত্তা ইত্যাদি নানা নাগরিক সুবিধা দিয়ে থাকে। তার বিনিময়ে সরকার জনগনের কাছ থেকে ট্যাক্স বা কর নিয়ে থাকে। অর্থাৎ এটা সুষ্পষ্ট বিনিময়।

পক্ষান্তরে যাকাত কোন কিছুর বিনিময় নয়। আরবি ‘যাকাত’ শব্দের পরিভাষা হচ্ছে ‘বরকত’ যার বাংলা হচ্ছে ‘বৃদ্ধি’। অর্থাৎ আল্লাহর হুকুম মতো মুসলিম সম্পদশালীরা তাদের যে মাল সম্পদ ১ বছর পড়ে থাকে তার উপর শতকরা ২.৫% বা চল্লিশ ভাগের এক ভাগ যাকাত প্রদান করতে হয়।

২. সম্পদ বৃদ্ধি: ট্যাক্স দিলে সম্পদ বৃদ্ধি পায়না। ট্যাক্স দেয়ার কারণে সরকার কারো ইনকাম বা সম্পদ বাড়িয়ে দিয়েছে এমন কোন নজির নেই। গণতান্ত্রিক শাসন ব্যবস্থায় সরকারের এমন কোন প্রতিশ্রুতিও থাকেনা। পক্ষান্তরে শরীয়তসম্মতভাবে উপযুক্তস্থানে যাকাত দিলে সেই মাল সম্পদে মহান আল্লাহ পাক বরকত দান করেন তথা সেই মাল সম্পদ বৃদ্ধি পায়,ক্ষতির হাত থেকে বেঁচে যায়।

৩. ইবাদত: ট্যাক্স সরকারের দাবি। এ দাবি পূরণ করা কোন ইবাদত নয় তবে এটা সরকারের কাছে জনগণের দায় (যেহেতু জনগণ সরকারের দেয়া সুবিধা ভোগ করছে)। পক্ষান্তরে যাকাত প্রদানের মাধ্যমে মহান আল্লাহ পাক উনার আদেশ মানার কারণে ফরয  ইবাদত পালন হয়। পরকালীন ফায়দা হাছিল হয়।

৪. সম্পর্ক: ট্যাক্সের সাথে সম্পর্ক হচ্ছে সরকার ও জনগণের মধ্যে। মহান আল্লাহর সাথে কোন সম্পর্ক নেই। পক্ষান্তরে যাকাতের সাথে আল্লাহ পাক ও বান্দার সাথে সম্পর্ক; এখানে গণতান্ত্রিক সরকারের সাথে কোন সম্পর্ক নেই। তবে গণতন্ত্রের বদলে যদি  খিলাফত ব্যবস্থা জারি থাকতো তবে যাকাতের সাথে খলীফার সম্পর্ক থাকতো। কেননা ইসলামী শাসন ব্যবস্থায় যাকাত ভিত্তিক অর্থনীতি হয়। এ ব্যবস্থাপনায় জনগণের যাকাত একত্রিত করে হক্বদারদের কাছে পৌছে দেয়া বা উপযুক্ত স্থানে খরচ করা যিনি খলীফা উনার দায়িত্ব।

৫. পরকালীন প্রতিদান: ট্যাক্সের টাকা যতোই দেয়া হোক তাতে কোন সওয়াব নেই, আল্লাহর দরবারে তা কবুল হয়না। কেবল সরকারের কাছে যায়। পক্ষান্তরে সঠিকভাবে যাকাত দিলে দুনিয়াতেও মাল সম্পদ বৃদ্ধি পায়, পরকালেও এর উত্তম বদলা পাওয়া যায়।

৬. অনুপাত: ট্যাক্সের হার সুনির্দিষ্ট নয়; আয় বাড়ার সাথে সাথে নির্ধারিত হার পরির্তন হয়। পক্ষান্তরে যাকাতের হার সুনির্দিষ্ট (চল্লিশ ভাগের এক ভাগ বা শতকরা ২.৫%)। মাল সম্পদ যতোই বৃদ্ধি পাক যাকাতের এই হার কখনো বাড়েওনা কমেওনা।

৭. খরচের খাত: জনগনের কাছ থেকে নেয়া ট্যাক্স সরকার কোন খাতে ব্যায় করছে তা জনগণ জানে না। গণতান্ত্রিক সরকারও তা জানাতে বাধ্য নয়। পক্ষান্তরে যাকাতের অর্থ খরচের খাত ১৪শত বছর আগেই নির্ধারিত। সুনির্দিষ্ট ৮টি খাতেই কেবল যাকাতের অর্থ খরচ করা যায়। এর বাইরে কেহ যাকাতের অর্থ খরচ করলে সেই যাকাত আল্লাহর দরবারে কবুল হয়না।

 

৮. অর্থ ব্যবস্থা: গণতান্ত্রিক শাসন ব্যবস্থায় শাসকশ্রেনী প্রদানকৃত সেবার বিনিময়ে ট্যাক্স নিয়ে থাকে। এটা দেশের সুদভিত্তিক পুঁজিবাদী অর্থনীতির একটি অংশ মাত্র; এককভাবে পূর্ণাঙ্গ কোন অর্থনীতি নয়। পক্ষান্তরে যাকাত দ্বীন ইসলামী শাসন ব্যবস্থায় একমাত্র ও পূর্ণাঙ্গ অর্থব্যবস্থা।

৯. সমৃদ্ধি: ট্যাক্স প্রদানের মাধ্যমে গরিব বা মধ্যবিত্ত শ্রেণী আয় উপার্জনে বা জীবন মানে কোন সমৃদ্ধি ঘটেনা। যেহেতু ট্যাক্সের টাকা গরিবের কাছে যায়না, যায় সরকারের কাছে। আর সরকার ওই টাকার বিনিময়ে সেবা প্রদান করে। পক্ষান্তরে সঠিক জায়গায় যাকাত দেয়ার মাধ্যমে যাকাত প্রদানকারীদের মাল সম্পদ বৃদ্ধি পাওয়ায় তাদের ক্রয় ক্ষমতাও বৃদ্ধি পায়, ফলে সমাজের সর্বস্তরে  সমৃদ্ধি ঘটে। যারা গরিব হিসেবে যাকাত গ্রহণ করছেন তারাও একসময় যাকাত দাতারূপে পরিবর্তন ঘটে।

দ্বীন ইসলামের ইতিহাসেও দেখা যায় সাহাবী, তাবেঈন, তাবে-তাবেঈন উনাদের যুগে যাকাতভিত্তিক অর্থনীতি বাস্তবায়নের কারণে মুসলমানদের সম্পদ এতোবেশি বৃদ্ধি ঘটেছিল যে, তখন যাকাত নেয়ার মতো মানুষ খুঁজে পাওয়া যেত না। তখনকার মুসলমানগণ কাপ্তানের কাপড় দিয়ে উনাদের নাক মুছতেন। তাহলে পড়নের কাপড় ও উনাদের জীবনমান কতো উন্নত ছিল তা কল্পনা করাও কঠিন। জানা যায়, কাতানের কাপড় পড়ে পরবর্তী যুগের রাজা বাদশাহগণ বিলাশী জীবন যাপন করতেন। সেই কাপড়ের নমুনা এখনো তুরস্কের যাদুঘর তোপকাপি মিউজিয়ামে সংরক্ষিত আছে।

সূতরাং দেখা গেল যাকাতা ও ট্যাক্সের মধ্যে আকাশ পাতাল ব্যবধান।

আপনার মতামত